Header Ads

  • কচুর গুনাগুন

    গর্ভবতি মাকে বেশি করে কচু খাওয়ান
    কচুর পাঁচ, হাতের পাঁচ
    আঙ্গুলে গুনে মনে রাখ!
    এক কচুতেই সব সমাধান,
    রক্ত হবে ফুল ক্লিন!
    এক. কচুর পাতা
    দুই. কচুর লতি
    তিন. কচুর ফুল
    চার. কচুর ছরা (গাডিও বলে)
    পাচ. কচুর ডোগা
    কচুতে আছে প্রচুর “ক্যালশিয়াম”, “ভিটামিন এ”, ”আঁশ জাতীয়”, “আয়রন”, “আয়োডিন”, “প্রাকৃতিক এ্যান্টাসিড”, ভিটামিন সি”, কচু এমন একটি উদ্ভিদ যেটার পাতা থেকে শুরু করে কন্দ, মুখী, লতি সবই খাওয়া যায়। কচুর প্রতিটি অংশে রয়েছে আলাদা আলাদা খাদ্য উপাদান ও পুষ্টিগুণ। যাদের রক্ত শূন্যতা আছে তারা নিয়মিত কচু খেলে উপকার পাবেন। কচুতে আছে নানা রকমের ভিটামিন যা গর্ভবতী মা ও শিশুর জন্য দারুন উপকারি। কচু দামেও বেশ সস্তা, তাই দরিদ্র পরিবারের গর্ভবতী মহিলারা ভিটামিন ও আয়রনের চাহিদা পূরণের জন্য কচু খেতে পারেন। কচুর ডাঁটায় প্রচুর পরিমানে পানি থাকে,তাই গরমের সময় কচুর ডাঁটায় রান্না করে খেলে শরীরের পানির ঘাটতি পূরণ হয়। কচুর শাকে পর্যাপ্ত পরিমানে আঁশ থাকে যা হজমে সহায়তা করে। জ্বরের সময় রোগীকে দুধ কচু রান্না করে খাওয়ালে জ্বর দ্রুত ভাল হয়। কচুতে আছে প্রচুর ফাইবার, ফোলেট ও থায়ামিন যা মানব শরীরের জন্য অনেক দরকারি উপাদান। কচু খেলে রক্তের কোলেস্টরল কমে তাই উচ্চরক্ত চাপের রোগীদের জন্য ওল কচুর রস বেশ উপকারী। নিয়মিত কচু খেলে কোলন ক্যান্সার ও ব্রেষ্ট ক্যান্সারের ঝুঁকি কমে। কচুতে আছে অক্সলেট নামক উপাদান। গর্ভাবস্থায় প্রচুর কচু খেলে ”এ্যামনেশিয়া” খিচুনি না হওয়ার সম্ভাবনা, এবং প্রসবের সময় রক্ত স্বল্পতা হয় না, রক্ত খরনও কম হয়।
    পুরুষরা বেশি বেশি কচু খাবেন! বিবি খুশি হপেই হপে!
    তথ্যগুলি ইন্টারনেটে কিংবা ভাল স্বাস্থ্য উপদেস্টার কাছ থেকে যাচাই করবেন।

    No comments

    Post Bottom Ad